ব্রণ দূর করার উপায়!

#ব্রণ দূর করার উপায়: আসসালামু আলাইকুম। আপনারা সবাই কেমন আছেন? আল্লাহর রহমতে আমি অনেক ভালো আছি। আশা করি আপনারা অনেক সুস্থ ও সবল আছেন। তোমাকে বা মুখে ব্রণ বের হওয়া খুবই একটা অস্বস্তিকর বিষয়। তাই  ব্রণ দূর করার উপায় নিয়ে কথা বলব। কিছু কিছু সময়ে প্রায় সবারই ব্রণ বের হয়ে থাকে। ব্রণ বের হলেন চেহারা দেখতে খারাপ লাগে। ত্বকের সৌন্দর্য নষ্ট হয় এবং এই ব্রণ থেকে ত্বকে স্থায়ীভাবে দাগ পড়ে যেতে পারে। এটি ত্বকের উজ্জ্বলতা নষ্ট করে।

আমাদের ত্বকের তৈল গ্রন্থি ব্যাটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত হয় তখন ভেতরে পুঁজ জমা হয় এবং আকৃতি বৃদ্ধি পায়। পরে এটি পরিণত হয়।

মেয়েদের মধ্যে যারা টিনেজার তারা সাধারণত ব্রণের দাগ নিয়ে বেশি চিন্তিত থাকে কারণ এদের গ্রহণ বেশি বার হয়ে থাকে। তাই আমরা ব্রণ কমানোর জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করি। যেমন- বাজারের বিভিন্ন কসমেটিকস ব্যবহার করি। কিন্তু আমরা ভালো ফল পায় না। তাই চলুন, জানা যাক- ব্রণ দূর করার উপায়!

ব্রণ দূর করার উপায়

যদি কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করতে পারি তাহলে খুব দ্রুত ব্রণ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তাই আমরা ঘরোয়া উপায়ে প্রাকৃতিক এবং অর্গানিক কিছু জিনিস ব্যবহার করব এগুলোতে কোন পার্শপ্রতিক্রিয়া নাই তাই এগুলো ব্যবহার করা অনেক নিরাপদ। তাই আজ আমরা আলোচনা করব ব্রণ দূর করার উপায় নিয়ে। নিচের বিশদ আলোচনা করা হলো।

১. শসা ব্যবহার

ব্রণ দূর করার জন্য শসা আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ শশা আমাদের ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর করতে সাহায্য করে। এবং শসা আমাদের ত্বকের ময়লা দূর করতে সাহায্য করে অনেক সময় বিভিন্ন জীবাণুর কারণে ব্রণ বার হয়ে থাকে।

তাই প্রতিদিন বাইরে থেকে আসার সময় শসার রস দিয়ে মুখ ভালো করে পরিষ্কার করে নিতে হবে। অথবা আইস কিউব করে রেখে ব্যবহার করা যেতে পারে এতে ওপেন সোর্সের প্রবলেম সলভ হবে।

২. মুলতানি মাটি ব্যবহার

ত্বকের ব্রণ কমাতে মুলতানি মাটি খুবই কার্যকরী একটি উপাদান। সাধারণত ত্বকে অতিরিক্ত তেলতেলে ভাব এর কারণে ব্রণ বার হয়ে থাকে। তাই নিয়মিত যদি মুলতানি পাতা তোকে লেটে দিতে পারেন তাহলে ঝামেলা থেকে অনেকটা মুক্তি পাওয়া যাবে। কারণ মুলতানি মাটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল তেল ভাব বা তেল নিঃসরণ বন্ধ করতে সাহায্য করে।

৩. শসার রস ব্যবহার

আমাদের ত্বকে সাধারণত তেলতেলে ভাব এর কারণে ব্রণ বার হয় এই তেলতেলে ভাব দূর করার জন্য শসার রস খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শসার রস মুখে ব্রণ দূর করতে অনেকটা সাহায্য করে। শসার রসের সাথে যদি চালের গুঁড়া মিশিয়ে নেওয়া হয় তাহলে এটি স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।

তবে এর সঙ্গে যদি সামান্য মধু মিশিয়ে নেওয়া হয় তাহলে অনেক বেশি উপকার হবে। তাই আপনারা এই মিশ্রণটি সপ্তাহে দুই তিন দিন ব্যবহার করার চেষ্টা করুন এতে আপনাদের ত্বক পরিষ্কার হবে তেলতেলে ভাব দূর হবে। কিন্তু খেয়াল রাখবেন যাতে ব্রণ থাকলে ইস্কাপ করা যাবে না।

৪. আপেল ও মধুর ব্যবহার

ব্রণ দূর করতে আপেলের ব্যবহার হয়তো অনেকে জানেন না। তবে আপেল ও মধুর মিশ্রণ খুবই জনপ্রিয় একটি ঘরোয়া পদ্ধতি ব্রণ দূর করার জন্য।

এর জন্য প্রথমে একটি আপেল ভালো করে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। তারপর তাতে চার থেকে ছয় ফোটা মধুর নিয়ে ভালো করে মিশাতে হবে। তারপর মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে ঠান্ডা পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলতে হবে।

এতে করে মুখের ত্বকের টানটান ভাব বজায় থাকবে এবং মুখের রঙ হালকা হবে। এটি এ সপ্তাহে পাঁচ-ছয় বার পড়লে খুব উপকার হবে আপনারা নিজেরাই বুঝতে পারবেন।

৫. কাচা হলুদ এবং চন্দন ব্যবহার

মুখের ব্রণ দূর করার জন্য কাঁচা হলুদ এবং চন্দন কাঠের গুঁড়া এই দুটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ব্রণ দূর করার জন্য। এ দুটি উপাদান ব্রণ দূর করার পাশাপাশি ব্রণের দাগ দূর করতেও সাহায্য করে। তাই কিছু পরিমাণ চন্দন কাঠ এর গুঁড়ো এবং সেই সমপরিমাণ মধু এবং কয়েক ফোটা পানি একত্রে মিক্স করে আক্রান্ত স্থানে ভালো করে লাগিয়ে শুখনো পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলতে হবে। এভাবে কয়েকদিন করলে ব্রণ এবং ব্রণের দাগ দূর হবে l এ ছাড়াও চন্দন কাঠের গুঁড়ো সাথে গোলাপজল এবং লেবুর রস মিশিয়ে লাগাতে পারেন এতে ব্রণ দূর হবে। এজন্য চন্দন কাঠের গুঁড়ো সাথে গোলাপজল মিশিয়ে মিক্স করতে হবে তারপর দুই তিন ফোঁটা লেবুর রস ভালো করে মেশাতে হবে।

যাদের শরীরে গোলাপজল এডজাস্ট হয় না তারা চাইলে মধু ইউজ করতে পারেন এই মিশ্রণটি লাগিয়ে কিছুক্ষণ ওয়েট করে ভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে সপ্তাহে তিন চারদিন করতে পারলে ভালো ফল পাওয়া যাবে। এটি ত্বকের ব্রণ দাগ দূর করতে সাহায্য করে।

**************** 

ওপরের এই ঘরোয়া ব্রণ দূর করার উপায় গুলো যদি আপনারা যথাযথভাবে প্রয়োগ করতে পারেন তাহলে খুব অল্প সময়ে আপনাদের ব্রণ এবং ব্রণের দাগ এবং ত্বকের যে কোন সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন। আসসালামু আলাইকুম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here