তুলসী পাতার উপকারিতা!

#তুলসী পাতার উপকারিতা: আসসালামু আলাইকুম। সবাই কেমন আছেন? আশা করি ভালো আছেন. আজকে আমরা জানবো তুলসী পাতার উপকারিতা সম্পর্কে।

আমরা সবাই জানি তুলসী পাতার রয়েছে অনেক উপকারিতা। আয়ুর্বেদিক মতে তুলসী পাতা বিভিন্ন রোগ ভালো করতে সাহায্য করে। এটি ব্যবহারে কোনো ধরা বাধা নিয়ম নেই।

যখন ইচ্ছা যতগুলো ইচ্ছা কাচা পাতা চিবিয়ে খাওয়া যায়। বনের ওষুধের মধ্যে তুলসী পাতা সবচেয়ে উৎকৃষ্ট বলে স্বীকার করেছে এবং মেটেরিয়া মেডিকাতে এই কাজটি সর্বোচ্চ স্থান দেওয়া হয়েছে।

তুলসী পাতার উপকারিতা

বন্ধুরা তাহলে তুলসী পাতার উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে জেনে নেওয়া যাক। কার্তিক মাসে প্রতিদিন করে তুলসী পাতা খালি পেটে চিবিয়ে খেলে পুরো বছর কোনো প্রকারের রোগ হওয়া বেশি সম্ভাবনা থাকবে না।

তুলসী পাতার মালিশ

তুলসী পাতার রস নিয়ে মালিশ করলে হাড় শক্ত হয়। দেহকে সাবান তেল ক্রিম প্রভৃতির স্থলে তুলসীর রস প্রয়োগ করলে নানা প্রকার দৈহিক সুস্থতা লাভ হয়।

দাঁত ভালো থাকে

তুলসী পাতা চিবালে দাঁতে পোকা থাকে না। দাঁতকে আরও সুন্দর সুন্দর মজবুত। তাদের আয়ু বৃদ্ধি করে। দাঁতের যন্ত্রণা খুবই কষ্টদায়ক! দাঁতের যন্ত্রণা হলে তুলসী পাতা ও কালো মরিচ বেসন করে বাটিকা তৈরি করতে হবে এবং যে দাঁতে যন্ত্রণা হচ্ছে তার গোড়ায় চেপে রাখলে দাঁতের যন্ত্রণা কমে যাবে।

চোখের সমস্যার সমাধান করে

চক্ষু ও তার সমাধান করতে সাহায্য করে। চোখ ওঠা একটি সংক্রামক রোগ। ঘোরাফেরা করার ফলে এই রোগ হয়ে থাকে। এই অবস্থায় তুলসী পাতার রস চোখে কাজল এর মতো লাগালে হবে! অথবা তুলসী রসে সামান্য মধু মিশিয়ে চক্ষুতে এক ফোঁটা দিতে হবে! এভাবে দিলে চোখে পানি পড়া প্রবৃত্তি আরোগ্য হয়।

পেট পরিষ্কার হবে

পায়খানা পরিষ্কার না হলে, গলার মধ্যে ও তার রুপিয়া দেখা দেয় কাশি এবং সেইসাথে মাথা ভার হয়ে থাকে। এই অবস্থায় ২০ গ্রাম তুলসী পাতা সঙ্গে 50 গ্রাম গোলাপি ফিটকিরি চূর্ণ করে একটি মটরের মতো তৈরি করে নিতে হবে। এগুলো একটি করে সকালে ও সন্ধ্যায় সেবন করলে কুষ্ঠদ্ধতা পায়খানার কষ্ট দূর হয়ে যাবে।

জন্ডিস দূর করণে

দেহের রক্ত কমে গেলে জন্ডিসে সারা দেহ হলুদ বর্ণ হয়ে যায়। জন্ডিস রোগ হলে তা দূর করতে সাহায্য করে তুলসীর রস 100 গ্রাম এবং মূল্য রস 50 গ্রাম একত্রে মিশিয়ে তাতে গুড় মিশিয়ে খেলে আরোগ্য হয়। এক মাস পর্যন্ত দিনের বেলা তিনবার খেতে হবে তুলসী পাতা 3 গ্রাম, পুনরায় মূল 3 গ্রাম দুটি একত্রে পেশন করে 50 গ্রাম পানিতে গুলে সেবন করতে হবে। স্বল্পতার জন্য ফুল দিয়ে বলে তা দূর করতে ভূমিকা রাখবে এবং শরীর ভালো হবে।

যৌবন ধরে রাখতে

যৌবন স্থির করণে তুলসী পাতার রয়েছে অসাধারণ উপকার। খানা নাগকেশরের নিয়ে 100 গ্রাম তুলসী পাতার সাথে সব একত্রে বেটে করে 50 গ্রাম মধু মিশিয়ে আধা কিলো চিনি দিয়ে চাটনি তৈরি করে ঠান্ডা করতে হবে। এবার ওদের সব দিয়ে মিশিয়ে যত্রি ছোট এলাচ ও কেশর 10 গ্রাম পরিমাণে নিয়ে পেশন করতে হবে। এটি হলো তুলসীর টনিক। শীতের দিনে প্রত্যহ 10 গ্রাম সকালে খেতে পারলে; সাথে ঈষদুষ্ণ গরম দুধ খেলে যৌবন দীর্ঘস্থায়ি হয়।

********

প্রিয় পাঠক, এই ছিল তুলসী পাতার উপকারিতা! এই ধরনের আরও নতুন পোস্ট পড়তে আমাদের সাইটের সাথে থাকুন। ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here