চুল পড়া কমানোর উপায়!

#চুল পড়া কমানোর উপায়: আসসালামু আলাইকুম। সবাই কেমন আছেন? আশা করি সবাই ভাল আছেন। আমিও আলহামদুলিল্লাহ অনেক ভালো আছি। আজকে চুল পড়া কমানোর উপায় নিয়ে বলব। আমাদের শরীরের প্রত্যেকটা অংশ আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। তেমনি আমাদের মাথার চুল ও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। চুল আমাদের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে এবং রোদের তাপমাত্রা থেকে আমাদের মস্তিষ্ককে সুরক্ষিত রাখে।

আমরা সবাই চাই যে আমাদের চুল ঘন এবং মজবুত হোক। কিন্তু বিভিন্ন কারণে অথবা বিভিন্ন রোগের ফলে আমাদের মাথার চুল পড়ে যেতে থাকে এবং মাথা টাক হয়ে যায়। কিন্তু আমরা যদি একটু সচেতন হয় তাহলে চুল পড়া অনেকটা রোধ করা সম্ভব। এই চুলপড়া সমস্যায় নারী-পুরুষ উভয়েই ভুগছে বর্তমানে।

চুল পড়া কমানোর উপায়

অনেকের বয়সের তুলনায় অনেক আগেই চুল পড়ে টাক হয়ে যায়। আবার অনেকের চুল পেকে সাদা হয়ে যায় বিভিন্ন কারণে। প্রতিদিন 50 থেকে 100 টা চুল পড়লে সেটা স্বাভাবিক বিষয়। কিন্তু এর থেকে বেশি চুল পড়লে এবং সে পরিমাণ চুল নতুন করে না গজালে অল্পদিনের মাথা টাক হয়ে যায়।

এ সমস্যা বিভিন্ন মানুষের বিভিন্ন কারণে হতে পারে। যেমন- কারও কারও বংশগতভাবে চুল পড়ে, কারও কারও ওষুধের সাইড ইফেক্ট এর কারণে চুল পড়ে যায়, অত্যাধিক ধূমপানের কারণে চুল পড়ে যেতে পারে।

হরমোন জনিত সমস্যার কারণে চুল পড়ে যেতে পারে। তাই আজ আমরা আলোচনা করব চুল পড়া কমানোর উপায় নিয়ে। যথাযথভাবে কিছু ঘরোয়া চুল পড়া কমানোর উপায় অবলম্বন করলে চুল পড়া রোধ করা সম্ভব। নিচে বিশদ আলোচনা করা হলো।

১. আমলকি ব্যবহার

আমলকি চুল পড়া কমানো ও নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। সাধারণত ভিটামিন সি এর অভাবে চুল পড়ে যায়। আমলকিতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি’ রয়েছে। তাই আমলকি দূরত্ব চুল বৃদ্ধিতে অনেক সহায়তা করে। আমলকীর রস বা আমলকীর তেল যদি মাথা ইউজ করা হয় তাহলে চুলের গোড়া অনেক মজবুত হয়।

নারিকেল তেলের সাথে আমলকির রস ভালো করে মিশিয়ে মাথায় কিছুক্ষণ দিয়ে রাখুন তারপর শ্যাম্পু দিয়ে ভালো করে মাথা ধুয়ে ফেলুন। এর ফলে চুল পড়া রোধ হবে।

২. অ্যালোভেরা ব্যবহার

আমরা অ্যালোভেরা বিভিন্ন রোগ নিরাময়ে ব্যবহার করে দেখে থাকি। অ্যালোভেরা ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। শুধু তাই নয় এটি চুলের জন্য খুব উপকারী।

অ্যালোভেরা চুল পড়া রোধ করে এবং মৃত স্ক্যাল্পে গুলো সতেজ করে ফলে নতুন চুল গজাতে শুরু করে। অ্যালোভেরার জেল 2 চা চামচ নিয়ে চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ভালভাবে লাগিয়ে নিন কিছুক্ষণ পর ধুয়ে ফেলুন এভাবে সপ্তাহে দুই তিনবার পড়লে চুল পড়া রোধ কমবে এবং চুল অনেক সুন্দর হবে।

৩. লেবুর রস ব্যবহার

পাতিলেবুর রস চুলের জন্য খুবই উপকার। লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে যা চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে। সুরেশ সাইট্রিক এসিড ভিটামিন সি ইত্যাদি থাকায় চুলের খুশকি দূর করে এবং চুলকে অনেক সুন্দর করে এটি সপ্তাহে 1, 2 বার করলে চুল পড়া অনেকটা কমে আসবে।

৪. গ্রিন টি ব্যবহার

গ্রিন টি চুলের জন্য অন্যতম একটি ঘরোয়া উপায়। গ্রীন টি তে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পলি ফিনাল এন্টি অক্সাইড চুলের খুশকি চুলের ভোদাফাটা এবং চুলের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা খুব ভালো কাজ করে এবং চুল বৃদ্ধিতে অনেক সহায়তা করে।

তাই সপ্তাহে একবার হলেও গ্রিন টি চুলের স্ক্যাল্পে সাথে ভাল করে লাগিয়ে কিছুক্ষণ পর ধুয়ে ফেলুন। এতে চুলের যেকোন সমস্যা ও ত্বকের সমস্যা দূর হয়ে যাবে।

৫. পেঁয়াজের রস ব্যবহার

চুল পড়া রোধে ও নতুন চুল গজানোর জন্য পেঁয়াজের রস অন্যতম একটি উপাদান। পেঁয়াজের রসের রয়েছেন এন্টি ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি ফাংগাল চুলকে মজবুত শক্ত চুল দ্রুত বৃদ্ধিতে কাজ করে থাকে।

৬. ডিমের ব্যবহার

ডিম একটি অন্যতম উপাদান চুল পড়া রোধে সাহায্য করার জন্য। ডিম চুলকে শক্ত মজবুত ও মসৃণ করতে সাহায্য করে। যাদের চুল তৈলাক্ত তারা ডিমের সাদা অংশটি ব্যবহার করবেন এবং যাদের চুল শুষ্ক তারা কুসুমের অংশটি ব্যবহার করবেন।

ডিমে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকায় চুল অনেক মজবুত এবং চুল পড়া রোধ হয়। ডিমের সাথে লেবুর রস মিশিয়ে মাথায় চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত 20 মিনিট লাগিয়ে রাখুন এতে চুলের স্কেল সেগুলো সতেজ হবে। এ ছাড়াও ডিমের সাথে কলা অথবা মধু ব্যবহার করলে চুল পড়া রোধ ও চুল বৃদ্ধিতে অনেক ভালো কাজ করে। এটি মাসে একবার করার চেষ্টা করবেন।

*********** 

ওপরের এই চুল পড়া কমানোর উপায় গুলা যদি আপনারা যথাযথভাবে মেনে চলতে পারেন তাহলে চুল পড়া রোধ হবে এবং চুল বৃদ্ধিতে অনেক সহায়তা করবে।

ওপরের চুল পড়া কমানোর উপায় গুলো নিয়মিত ব্যবহার করুন; কিছুদিন পরেই এর ফল বুঝতে পারবেন। আশা করি আপনাদের অনেক উপকার হবে। লেখায় কোনো সমস্যা হলে ক্ষমা করে দেবেন। আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ আ বারাকাতু।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here